• ২৫শে জুন, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ , ১১ই আষাঢ়, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

ঢাকায় অফিস খুললো কমনওয়েলথ ট্রেড অ্যান্ড ইনভেস্টমেন্ট ফোরাম

ডেস্ক
প্রকাশিত সেপ্টেম্বর ১৩, ২০২৩, ০৭:১৭ পূর্বাহ্ণ
ঢাকায় অফিস খুললো কমনওয়েলথ ট্রেড অ্যান্ড ইনভেস্টমেন্ট ফোরাম
সংবাদটি শেয়ার করুন....

কমনওয়েলথ এন্টারপ্রাইজ অ্যান্ড ইনভেস্টমেন্ট কাউন্সিলের (সিডব্লিউইআইসি) উদ্যোগে বাংলাদেশে বাণিজ্য ও বিনিয়োগ সম্ভাবনা বৃদ্ধি করতে ঢাকায় অফিস খুলেছে কমনওয়েলথ ট্রেড অ্যান্ড ইনভেস্টমেন্ট ফোরাম।

মঙ্গলবার ঢাকার বারিধারা জে ব্লকে লিয়াজোঁ অফিস উদ্বোধন করেন সিডব্লিউইআইসি চেয়ারম্যান লর্ড মারল্যান্ড এবং প্রধানমন্ত্রীর বেসরকারি শিল্প ও বিনিয়োগ উপদেষ্টা সালমান এফ রহমান।

অনুষ্ঠানে আরও উপস্থিত ছিলেন পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী ড. মো. শাহরিয়ার আলম।

কমনওয়েলথ নামে পরিচিত ‘কমনওয়েলথ অব নেশনস’ ৫৬টি রাষ্ট্রের একটি আন্তর্জাতিক সংস্থা যার বেশিরভাগই প্রাচীন ব্রিটিশ সাম্রাজ্যের অঞ্চল ছিল।

ঢাকা অফিস উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে লর্ড মারল্যান্ড বলেন, আন্তর্জাতিক বাণিজ্যের সম্ভাবনাকে কাজে লাগাতে ভালো অবস্থানে রয়েছে রয়েছে বাংলাদেশ।

কমনওয়েলথ ট্রেড অ্যান্ড ইনভেস্টমেন্ট ফোরামের এই ঢাকা অফিস কমনওয়েলথের সদস্য দেশগুলোর মধ্যে পারস্পরিক বাণিজ্য এবং বিনিয়োগের সুযোগ তৈরিতে স্থানীয় ব্যবসায়িকদের সঙ্গে কাজ করবে বলে উল্লেখ করেন মারল্যান্ড।

প্রধানমন্ত্রীর বেসরকারি শিল্প ও বিনিয়োগ উপদেষ্টা সালমান এফ রহমান তার বক্তৃতায় বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের প্রচেষ্টায় স্বাধীনতার পরপরই পারস্পরিক সহযোগিতার স্বপ্ন নিয়ে বাংলাদেশের কমনওয়েলথে যোগদানের কথা স্মরণ করেন।

গত এক দশকে স্থিতিশীল প্রবৃদ্ধি ধরে রেখে বাংলাদেশ বিশ্বে উন্নয়নের রোল মডেলে পরিণত হয়েছে বলে দাবি করেন প্রধানমন্ত্রীর বেসরকারি শিল্প ও বিনিয়োগ উপদেষ্টা।

তিনি বলেন, বাংলাদেশের বাংলাদেশের অর্থনীতির এই অগ্রযাত্রাকে আরো বেগবান করতে এবং নতুন নতুন বাণিজ্য ও বিনিয়োগ সুবিধা সৃষ্টিতে এই অফিস গুরুত্বপূর্ণ ভুমিকা রাখবে।

কমনওয়েলথের সঙ্গে অস্ট্রেলিয়া, কানাডা এবং ভারতের মতো শক্তিশালী অর্থনীতি রয়েছে যা অন্যান্য সদস্য দেশগুলোতে জ্বালানি, উৎপাদন এবং প্রযুক্তির সম্প্রসারণে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখবে বলে মনে করেন সালমান এফ রহমান।

বাংলাদেশ প্রথমবারের মতো কমনওয়েলথ ট্রেড অ্যান্ড ইনভেস্টমেন্ট ফোরামের আয়োজন করছে। বুধবার আন্তর্জাতিক এই সম্মেলনের উদ্বোধন করবেন মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।