সর্বশেষ: আওয়ামী লীগ সরকারের আমলে সংবাদপত্র সবচেয়ে বেশি স্বাধীন পেয়েছে ।-এমপি শাওন সাতক্ষীরার বৈকারী সীমান্ত থেকে ১ কেজি ৫৭০ গ্রাম ওজনের ১০ পিস স্বর্ণের বারসহ আটক -১ সাতক্ষীরার বৈকারী সীমান্ত থেকে ১ কেজি ৫৭০ গ্রাম ওজনের ১০ পিস স্বর্ণের বারসহ আটক -১ আশাশুনিতে যৌতুকের দাবীতে স্বামীর হাতে স্ত্রী জখম আশাশুনি আলিয়া মাদ্রাসায় মতবিনিময় সভা অনুষ্ঠিত আশাশুনিতে ইউএনও'র ধান্যহাটি কমিউনিটি ক্লিনিক পরিদর্শন আশাশুনিতে ইউএনও'র ধান্যহাটি কমিউনিটি ক্লিনিক পরিদর্শন আশাশুনিতে ইউএনও'র ধান্যহাটি কমিউনিটি ক্লিনিক পরিদর্শন লালমনিরহাটে পানিতে ডুবে স্কুলছাত্রের মৃত্যু লালমনিরহাটে পানিতে ডুবে স্কুলছাত্রের মৃত্যু

টেকনাফে প্রায় ৪ লাখ পিস ইয়াবা উদ্ধার

প্রকাশ: 16 August, 2020 6:46 : AM

কক্সবাজারের টেকনাফে এগার কোটি ৭০ লাখ টাকার মূল্যের ৩ লাখ ৯০ হাজার পিস ইয়াবা উদ্ধার করেছে বর্ডার গার্ড বাংলাদেশ-বিজিবি। তবে এ ঘটনায় পাচারকারী কাউকে আটক করতে পারেনি তারা।

টেকনাফ বিজিবি ২ ব্যাটালিয়নের অধিনায়ক লে. কর্নেল মোহাম্মদ ফয়সল হাসান খান জানান, টেকনাফ উপজেলাধীন দমদমিয়া বিওপির দায়িত্বপূর্ণ এলাকার আওতাধীন জাদিমোড়া ওমর খাল এলাকা দিয়ে মিয়ানমার হতে ইয়াবার একটি বড় চালান বাংলাদেশে আসছে। উক্ত সংবাদের ভিত্তিতে টেকনাফ ব্যাটালিয়ন (২ বিজিবি) এর অধীনস্থ দমদমিয়া বিওপির বিশেষ টহল দল উল্লেখিত স্থানে গোপনে অবস্থান নেয়।

পরবর্তীতে শনিবার রাতে ৩ থেকে ৪ জন ইয়াবা কারবারী ঝড় বৃষ্টি উপেক্ষা করে মিয়ানমারের লালদ্বীপ হতে ওমরখাল বরাবর বাংলাদেশের স্থল সীমানায় আসতে দেখে টহল দল দ্রুত তাদের দিকে এগিয়ে যায় এবং চ্যালেঞ্জ করে। চোরাকারবারীরা দূর হতে টহল দলের উপস্থিতি বুঝতে পেরে তাদের সাথে থাকা ৫টি বস্তা ফেলে চলে যায়। খালের পাশ দিয়ে কেওড়া জঙ্গলের আঁড় ব্যবহার করে প্রবল ঝড় ও বৃষ্টির মধ্যে কেওড়া জঙ্গলের ভিতর দিয়ে দ্রুত পালিয়ে যায় তারা।

টহল দল উল্লেখিত স্থানে পৌঁছে ইয়াবা কারবারীদের ফেলে যাওয়া বস্তাগুলো উদ্ধার করে। বস্তার ভেতর হতে ১১,৭০,০০,০০০/-(এগার কোটি সত্তর লাখ) টাকা মূল্য মানের ৩,৯০,০০০ (তিন লাখ নব্বই হাজার) পিস ইয়াবা ট্যাবলেট জব্দ করে।

ইয়াবা কারবারীদের ধরতে এলাকায় ও নদীর তীরসহ পার্শ্ববর্তী স্থানে রাতভর তল্লাশি অভিযান অব্যাহত রয়েছে। ইয়াবা কারবারীদের সনাক্ত করার জন্য অত্র ব্যাটালিয়ন কর্তৃক সকল ধরণের কার্যক্রম চলমান রয়েছে।

উদ্ধারকৃত মালিকবিহীন ইয়াবাগুলো বর্তমানে ব্যাটালিয়ন সদরের স্টোরে জমা রাখা হয়েছে। প্রয়োজনীয় আইনি কার্যক্রম গ্রহণ পরবর্তীতে তা উর্ধ্বতন কর্মকর্তা, মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদপ্তরের প্রতিনিধি, স্থানীয় গণ্যমান্য ব্যক্তিবর্গ ও মিডিয়া কর্মীদের উপস্থিতিতে ধ্বংস করা হবে বলেও জানায় বিজিবির এ কর্মকর্তা।